ইন্টারনেটে তথ্য খোঁজার জনপ্রিয় সার্চ ইঞ্জিন গুগলের একটি বাংলা সংস্করণ আছে। এটা অনেকেই ব্যবহার করেন। সাম্প্রতিক এক পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে বাংলাদেশ থেকে গুগলের বাংলা সংস্করণে বেশি খোঁজা হয় অশ্লীল কাহিনি ও ছবি। ইংরেজি ২৬টি বর্ণের ২০টিতেই অশ্লীল শব্দ খোঁজার হার বেশি। এমনকি তালিকার দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ নম্বরেও অশ্লীল শব্দগুলোই জায়গা পেয়েছে। আর যেসব অশ্লীল শব্দ, ছবি, যৌন উদ্দীপক বইয়ের খোঁজ করা হয়, সেগুলোর ডিজিটাল সংস্করণ যথেষ্ট পরিমাণেই আছে ইন্টারনেটে। কখনো সেসব ইউনিকোড বাংলায় লেখা কখনোবা বই থেকে স্ক্যান করা।
বাংলাদেশ থেকে ইন্টারনেটে অশ্লীল ওয়েবসাইট দেখার প্রবণতা এবং দেশি অশ্লীলও পর্নোগ্রাফিক ওয়েবসাইট নিয়ে মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন একটি পর্যবেক্ষণ করে।পর্যবেক্ষণের পর সংস্থাটি ৮৪টি ওয়েবসাইটের একটি তালিকা বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনকে (বিটিআরসি) দিয়েছিল।এরপর সেই সাইটগুলো বন্ধ করে বিটিআরসি।
সম্প্রতি আরেকটি পর্যবেক্ষণে বাংলা গুগলে অশ্লীল শব্দ খোঁজার হার বেশি বলেদেখা যায়।
এ ব্যাপারে মনোবিজ্ঞানীরা জানান, এর ফলে ইন্টারনেট ব্যবহারকারী তরুণদের মধ্যে মানসিক অস্থিরতা বাড়ছে। তবে শুধু আইন করে এটা থামানো সম্ভব বলেও মনে করছেন না কম্পিউটার প্রকৌশলীরা।
মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন-এর পর্যবেক্ষণ হলো, পর্নোসাইট দেখার প্রবণতা কয়েক বছরে বেড়ে গেছে কয়েক গুণ। পাশাপাশি এসব সাইটের ব্যবহারকারী হিসেবে শিশুদের পাওয়া যাওয়ায় তারা শঙ্কা প্রকাশ করেছে। তাদের অনুসন্ধানে জানা যায়, সাইবার ক্যাফে, মোবাইল ফোন, অফিস-আদালতে দুর্বল পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা এর অন্যতম কারণ। বিভিন্ন বয়সীর কর্মক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় সাইট ছাড়া স্থির ও চলমান পর্নো ছবি দেখার সুযোগ না রাখার জন্য নিজেদের কর্মপরিবেশ নীতিমালা থাকা প্রয়োজন বলেও উল্লেখ করেছে তারা।
সমাজ গবেষকদের দাবি অনুযায়ী, গুগল বিডিতে ইংরেজি ২৬ অক্ষর একের পর এক দিয়ে দেখা গেছে, অশ্লীল শব্দ সবচেয়ে বেশিবার খোঁজা হয় ‘বি’ দিয়ে।‘এ’তে খোাঁজ হয় বিদেশি অশ্লীল ছবি। অশ্লীল শব্দ খোঁজার তালিকা থেকে বাদ পড়া অক্ষরগুলো হলো ডি (ঢাকা শেয়ারবাজার), ই-(একাত্তরের চিঠি), টি (টাকা আয়), ইউ ও ডব্লিউ (উইকিপিডিয়া) কোষ, শুধু ‘কিউ’ অক্ষর দিয়ে কোরআনের সঙ্গে সম্পৃক্ত শব্দ।
পরিস্থিতি বিবেচনা করে বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি মোস্তাফা জব্বার বলেন, অশ্লীল বিষয়গুলো খোঁজা এবং সেগুলোর পড়া ও দেখার বিষয়গুলোকে শুধু আইন করে বন্ধ করা যাবে না।একই সঙ্গে দরকার কঠোর পর্যবেক্ষণ ও সামাজিক প্রতিরোধ।
২০০৯ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ পুলিশও পর্নোসাইট ঠেকাতে চিঠি দেয় বিটিআরসিকে। চিঠিতে বলা হয়েছিল, বেশ কয়েক বছর ধরে বাংলাদেশের বহু নর-নারীর আপত্তিকর স্থির ছবি ও ভিডিওচিত্র ইন্টারনেটে ছড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে। পতিতাবৃত্তির চটকদার বিজ্ঞাপন এবং মেয়েদের মুখমণ্ডলের ছবি সুপারইম্পোজ করে নগ্নভাবে উপস্থাপনের যে প্রচলন শুরু হয়েছে তা বন্ধ করা প্রয়োজন। হাজার হাজার পর্নো ছবি প্রকাশ করার পেছনে যারা রয়েছে, তাদের প্রত্যেককে খুঁজে বের করা কঠিন বলে সাইটগুলো বন্ধ করে দেওয়ার সুপারিশ করেন তাঁরা।
বিটিআরসির চেয়ারম্যান ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) জিয়া আহমেদ বলছেন, ‘আমাদের একার পক্ষে এ কাজ বেশ কঠিন।’ গুগলে অশ্লীল বাংলা গল্প ও বাংলাদেশি নারীর ছবির প্রদর্শন সম্পর্কে জানানো হলে তিনি বলেন, ‘সার্চ ইঞ্জিন বন্ধ করি কী করে?’ চেয়ারম্যানের এই উক্তি যৌক্তিক নয় বলে দাবি করেন বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সভাপতি মোস্তাফা জব্বার। তিনি বলেন, ‘বিটিআরসির নিজস্ব যে যন্ত্রপাতি আছে তা দিয়ে পর্যবেক্ষণের ব্যবস্থা করা সম্ভব হলেও তারা তা করেনি। বিটিআরসির দাবি, বিষয়টি আইনি সিদ্ধান্তের মাধ্যমে হতে হবে এবং সামাজিক মূল্যবোধ সম্পর্কে তরুণ জনগোষ্ঠীর মনোভাব গঠনমূলক করে তোলাও গুরুত্বপূর্ণ।
মোস্তাফা জব্বার বলেন, ওয়েবসাইট বন্ধ করার আইনগত ক্ষমতা বিটিআরসির যদি নাও থাকে সেই ক্ষমতাটা অর্জন করা তাদের কর্তব্য। তবে গুগলের ক্ষেত্রে কীভাবে এটা বন্ধ সম্ভব জানতে চাইলে তিনি বলেন, কারিগরিভাবে সেটা সম্ভব। পাশাপাশি সামাজিক প্রতিরোধ ও সচেতনতার দরকার আছে।
মনোবিজ্ঞানীরা বলছেন, এ ধরনের অসুস্থ সংস্কৃতি প্রতিরোধে যদি ব্যবস্থা না নেওয়া হয় তবে ভবিষ্যতে ঘরে ও বাইরে নারীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগতে পারেন।
এর প্রভাব সম্পর্কে মনোরোগ বিশেষজ্ঞ মেহতাব খানম বলেন, যৌন সম্পর্কগুলো অবদমনের কারণে আমাদের মানসিক বিকারগ্রস্ততা বাড়ে। শুধু লুকিয়ে দেখার ফলে কিশোরেরা শুরু থেকেই অবৈধ ভোক্তার অনুভূতি নিয়ে বড় হচ্ছে। যেটা সমাজে ভয়াবহ পরিস্থিতি তৈরি করতে পারে। বয়সের পার্থক্য অনুযায়ী যৌন বিষয়গুলো সম্পর্কে জানানোর ব্যবস্থা পরিবার বা সমাজে থাকলে এসব ভোক্তা কমে আসবে বলেও তিনি বিশ্বাস করেন।

Source

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / পরিবর্তন )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / পরিবর্তন )

Connecting to %s